Hi there! I'm Raj Rumel

Web & Graphics Designer

Hi there! I'm Raj Rumel

Latest Post

আসসালামু আলাইকুম আশা করি আপনারা ভালো আছেন। আপনাদের দোয়ায় এবং আল্লাহর রহমতে আমিও ভাল আছি। বেশি কথা না বলে চলুন দেখে আসি। কিভাবে আপনি আপনার সকল ফেসবুক ফ্রেন্ড এর ফোন নাম্বার এক সাথে দেখবেন।
এর জন্য আপনাকে একটি অ্যাপস ডাউনলোড দিতে হবে। Play Store থেকে Termux অ্যাপ টি ইনস্টল করে নিন। 
ওপেন করলে এরকম একটি পেজ আসবে।
এবার আপনাকে এই কমান্ডগুলো দিতে হবে।
© apt update && apt upgrade
© apt install git
© apt install python2
এগুলো দেওয়ার পর এরকম আসবে।
এরকম আসার পর আপনাকে এই কমান্ডগুলো দিতে হবে।
© git clone https://github.com/xHak9x/fbi.git
© ls
© cd fbi
কমান্ডগুলো দেওয়ার পর এরকম আসবে।
এখন আপনাকে এই কমান্ডটি দিতে হবে।
© pip2 install -r requirements.txt
কমান্ডটি দেওয়ার পর এরকম আসবে।
এবার এই কমান্ডটি দিতে হবে।
© python2 fbi.py
© help
© token
এখন, username এর জায়গায় আপনার Username/Phone Number/Email । এবং password এর জায়গায় আপনার Facebook I’d password দিতে হবে।
এরকম কমান্ড আসলে মনে করবেন Process ঠিক আছে  
এবার আপনাকে এই কমান্ডটি দিতে হবে।
© help
© get_data
এরকম কমান্ড আসলে মনে করবেন Process ঠিক আছে 
এখন আপনাকে এইটা লিখতে হবে।
© dump_phone (দেখুন এবার আপনার ফেসবুক ফ্রেন্ড এর ফোন নাম্বার দেখিয়ে দিচ্ছে)
নাম্বার দেখাচ্ছে।
একইভাবে আরো কিছু তথ্য দেখতে পারবেন, নিম্নে কিছু Command দিলাম।
© dumb_mail (দেখুন এবার আপনার ফেসবুক ফ্রেন্ড এর ইমেইল দেখিয়ে দিচ্ছে)
© get_info (এই কমান্ড এর মাধ্যমে বন্ধুর প্রফাইল এর সব তথ্য দেখতে পারবেন। Command টি দেওয়ার পর Search Option আসবে সেখানে বন্ধুর Id Number/Full Name দিয়ে Search দিয়ে দেখতে পারবেন।)
এরকম আরো কিছু Command "Help" এ দেওয়া আছে আপনারা নিজেরা চেষ্টা করতে পারেন। ধন্যবাদ
আজকে এই পর্যন্ত। যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে আমাকে কমেন্ট করে জানাবেন অথবা Facebook, Email
বি: দ্র: অক্ষর গুলো অবশ্য সব ছোট হাতের দিতে হবে

অদ্ভুত মেয়ে রূপান্তীয়া - রাজ রুমেল
মেয়েটি রোজ ফেসবুকে স্টোরি আপডেট করতো। আমি কোন রিয়েক্ট বা কোন কিছু না বুঝলে জিজ্ঞেস করতাম বলতো- “বলতো আমি জানি না" কিন্তু সেই সেটি আপডেট দিতো!! আমি বলতাম এর মানে কি?? সে বলতো, জানি না, আগে কখনো দেখিনি, আবার স্টোরিতে নিজে ছবি আপডেট করতো ছবিতে মুখের কোণে হাসি ঝুলেই থাকে। তবে খুব মেজাজী- অল্পতেই রেগে যায়।" আমি তার কিছু কথা বুঝতাম না। যেগুলো খুব শর্টকাটে বলতো।

মেয়েটির ফুটফুট হাস্যজ্জল চেহারা। গাল গুলো খুব সুন্দর সর্বক্ষণ হাস্যজ্জল থাকে। খুব মায়াময়ী সে নাম দিয়েছে নাফিসা তবে আমি মনে করি রূপান্তীয়া। আর তখনই রূপান্তীয়া সহাস্যমুখ রিয়েক্ট দিয়ে আমার তন্দ্রার অবসান ঘটায়।

নাফিসা কোন গল্পলেখক এর মতই অদ্ভুত কথা বলে। আমি তার কথা শুনে স্তব্ধ হয়ে যাই। আর তখনই নাফিসা কে ইচ্ছে করে নাম দেই রূপান্তীয়া।

একদিন নাফিসার পোস্ট দেখলাম সে এসএসসি তে জিপিএ-৫ পেয়েছে। আমি যাকে আমার সিনিয়র ভাবতাম সেই নাফিসা পড়ালেখার দিক দিয়ে দুই বছরের ছোট। কিন্তু তার ছবি দেখলে যে কেউ ভাববে সে অনেক বড়। তখন মনে পড়লো আমি তো উনার সাথে একদিন কলে কথা বলছি কোন এক কাজ নিয়ে।
তো আজ একটা বার্তা দিয়েই দেই।

- আমি বললাম আপনি এবার এসএসসি দিছেন?
- সে বলতেছে হুম!
- আমার তো বিশ্বাস হচ্ছে না।আমি তো ছবি দেখে মনে করেছি আপনি আমার সিনিয়র।
তখন তার অট্টহাসি আর বলে,
- সবাই এমনি মনে করে।
তারপর বললাম,
- ফলাফলের মিষ্টি কোথায়?
সে বললো,
- এতো দূরত্ব কিভাবে দিবো?
- খাওয়ানোরর ইচ্ছে হলে দূরত্ব কিছুই না।
- তাহলে আপনার মোবাইলে দশ টাকা দিয়ে দেই জালমুড়ি কিনে খেয়ে নিয়েন আমার ফলাফল উপলক্ষে।
- আমার নাম্বার নেওয়ার চেষ্টা, আমার নাম্বার সাক্ষাত করে নিতে হয়।
- তার রাগান্বিত রিয়েক্ট।

আমি হেরে যাওয়া বিভ্রান্ত পথিক, হাঁটছি অজানা দিগন্তে পথ হারিয়ে দিক-বেদিক। এমনি স্মৃতির ঘুড়ি উড়ান এর মত তার চলাচলন। সে এখন আমার ভালো বন্ধু কিন্তু আমায় মিত্যে বলে।
সে পারে নাচতে কিন্তু আমায় বলে পারেনা।
নাফিসাকে নিয়ে আমার কিছু অনুভূতি
‘ নাফিস প্রেম না দিলেও চলে, শুধু হাসি দিলে’—হাসি এতটাই মূল্যবান যে কবিগুরু তাঁর প্রেয়সীর কাছে প্রেম নয়, একটুখানি হাসিই আবদার করবেন।

মনের আগুন, লুকোচুরি মনের পর এবার ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে বাজারে আসছে
জান্নাতুল তাইফ মিম দিশার ‘রূপসী নগরের রাজকন্যা’।
রূপসী নগরের রাজকন্যা শিরোনামের গানটির
কথা লিখেছেনঃ আশিক মাহমুদ,
সুর ও সংগীতায়োজন করেছেনঃ আকাশ মাহমুদ।
এতে কণ্ঠ দিয়েছেনঃ জান্নাতুল তাইফ মিম দিশা ও আকাশ মাহমুদ।
ঈদকে সামনে রেখে সম্প্রতি গানটির রেকর্ডিং কাজও সম্পূর্ণ হয়েছে।

গান যার ভালবাসা, সুরেলা গানের মূর্ছনায় দর্শক শ্রোতাদের মাতিয়ে রাখতে, অবিরাম গান শুনিয়ে শ্রোতাদের মন জয় করে চলেছেন সুরের পাখি জান্নাতুল তাইফ মিম দিশা। এরই ধারাবাহিকতায় রূপসী নগরের রাজকন্যা দিশার এটি তৃতীয় গান

দিশা মূলত বিগত কয়েক বছর ধরে স্টেজ প্রোগ্রাম নিয়ে বেশ ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। এবারের ঈদকে সামনে রেখে আবেদনময়ী এই সুরেলা গানের পাখি গানটিতে সুর দিয়েছেন। তার গানের মূর্ছনাতে আন্দোলিত হবে অনেক দর্শকের হৃদয়, রূপসী নগরের রাজকন্যা গানটি তার ভক্তদের জন্য ঈদ উপহার।

ইতোমধ্যে মনের আগুন, লুকোচুরি মন গান দুটি শ্রোতাদের মন জয় করতে পেরেছেন। এই গানটিও ভক্তদের হতাশ করবে না বলে দিশার বিশ্বাস। তার ভাষায়, এ গানটিও দুর্দান্ত হয়েছে। আশা করি, গানটি সবাই পছন্দ করবেন।’

দিশা বলেন, ‘কাজটি করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। সবাই চেষ্টা করেছেন ভালো একটি গান তৈরি করার জন্য।’ আশা করি শ্রোতাদের ভালো লাগবে।

প্রিয় মানুষ্টির জন্য রইলো ভালবাসা যেন সে প্রত্যেক পর্যায়ে সবাইকে নতুন কিছু উপহার দিতে পারে - রাজ রুমেল


সিলেটের এই অপসংস্কৃতি গুলো লাতি মেরে ছুটে ফেলা উচিত!!!

বাবা ছোট খাটো একটা ব্যবসা করে।গত মাসে বড় মেয়ে কে বিয়ে দিয়েছি,প্রায় ৫ লক্ষ টাকা খরচ করে।আজ ইফতারি দিয়েছি জামাইয়ের বাড়িতে,প্রায় ১৫০০০ টাকা খরচ করে।একটু আগে মেয়ের ফোন।
বাবা কেমন আছেন?

-হ্যা মা ভালো।তুই ভালো আছিস ত?

আছি বাবা ভালো।

-এইভাবে বলছিস কেনো??তোর শ্বশুর রা খুশি হয়েছে তো?

ওরা কিছু বলেনি।ফুফু(জামাইয়ের ফুফু) বলেছে ইফতারি একটু কম হয়েছে।

-(তখন আমার চোখের পানি টলটল করছিল)আচ্ছা মা বলিছ,পরের বার থেকে আরো বাড়িয়ে দিবো।

বাবা শুনো।তুমি আমাদের বাড়িতে ঈদে কাপড় দিবে না?

-হ্যা মা দিবো।কেনো?

তুমি কাপড় দিওনা।খালা(জামাইয়ের খালা)বলেছে কাপড় দিলে সবার পছন্দ হবে না।কাপড় না দিয়ে টাকা দিয়ে দিতে।৩০,০০০ টাকা দিলে,সবার নাকি হয়ে যাবে।

-আচ্ছা মা।তুই চিন্তা করিস না।আমি এখন ও বেঁচে আছি।
(আমার বোঝতে দেরি হলনা,এতক্ষনে মেয়ের চোখের অনেক জল গড়িয়ে পড়েছে)

আচ্ছা বাবা,এখন রাখি।

-আচ্ছা মা ভালো থাকিস।

রাতে ছোট ছেলে নামাজ থেকে আসলো।
বাবা তুমি আছো?

-হা আছি।কিছু বলবি?

হ্যা,ঈদের পর ২য় সপ্তাহে সেমিস্টার ফাইনাল।বেতন, ফর্ম ফিলাপ ও অন্যান্য সহ ২৫হাজার টাকা লাগবে। আমার টিউশনির কিছু টাকা আছে। আপনি ২০ হাজার দিলে হবে।

-আচ্ছা দেখি। খেয়ে ঘুমিয়ে পর।

না বাবা,লেট হলে এক্সাম দিতে পারবো না।
নতুন জামাই বাড়িতে মৌসুমী ফলমুল দিতে হবে। তাতে ১০-১৫ হাজার টাকা দরকার। ঈদের পরে আবার কোরবানি,মেয়ের বাড়িতে গরু দিতে হবে।গরুর যে দাম,কমপক্ষে ৫০০০০ টাকা তো লাগবে।আবার নিজের জন্য ও একটা লাগবে।
এইখানে শেষ নয়,,আরো রয়েছে মেয়ের বাড়িতে দেওয়ার বিভিন্ন মৌসুমে বিভিন্ন আয়োজন।

এই সব চিন্তা করতে করতে না খেয়ে শুয়ে পড়েছি।নাবিলার মা অনেক কিছু জিজ্ঞেস করেছিলো,কিছু না বলে শুয়ে পড়েছি।
মাথায় একটা বিষয় কাজ করছে।টাকা!!টাকা!! আর মেয়ের সুখ।

এইভাবে রাত ১২ টা।হঠাৎ করেই বুকের ব্যথাটা বেড়ে গেছে। ধীরে ধীরে আমি দুর্বল হয়ে যাচ্ছি। আমার হাত-পা গুলো অকেজো হয়ে আসছে। আমার সারা জীবনের অনেক স্বপ্ন অসমাপ্ত রয়ে গেছে। সেই চিন্তা গুলো এখনো আমার পিছু ছাড়ছেনা।

পরদিন সকাল বেলা। সবাই কান্না কাটি করছে। আমার ছোট মেয়ে আর আমার প্রিয় স্ত্রী সব চেয়ে বেশি কাঁদছে।শুনলাম বড় মেয়ে ইতি এরই মধ্যে এসে গেছে।সবার দিকে চেয়ে থাকলাম। অনেক কিছু বলতে চাচ্ছি। কিন্তু কিছুই বলতে পারতেছিনা। ঠিক ২ মিনিট পর আর কিছু জানিনা।

এইভাবে হারিয়ে যাচ্ছে অনেক বাবা।আর বাবার স্নেহ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে শত শত ছেলে মেয়ে।হয়তো অনেকে এখন ও জানে না,তাদের বাবার মৃত্যুর রহস্য।

এইভাবে প্রতিনিয়ত আমরা হারাচ্ছি আমাদের প্রিয় বাবাদের।।

আমাদের এই কু প্রচলন কি পরিবর্তন হবেনা??

শহরে কিছুটা পরিবতর্ন হলেও গ্রামে ৯০% লোক এই কূ প্রচলন থেকে বের হয়ে আসতে পারেনি।

চলুন আমরা জেগে উঠি।
ধ্বংস করি এই অপসংস্কৃতি।😡😡

একাদশে ভর্তিতে যা কিছু নতুন
এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের একাদশ শ্রেণিতে অনলাইনে ভর্তির আবেদন নেয়া হবে ১২ মে থেকে। পঞ্চমবারের মতো এবার একাদশে অনলাইন ও এসএমএসে আবেদন নিয়ে ভর্তি সম্পন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।
শিক্ষার্থীরা যাতে কলেজের কাছে জিম্মি হয়ে না পড়ে সে লক্ষ্যে এবার আবেদনে নতুনত্ব আনা হয়েছে। কেবলমাত্র বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয় (এনআইডি) দিয়েই আবেদন করা যাবে। একটি নম্বরের বিপরীতে একাধিক আবেদন করা যাবে না। মূলত ভুয়া আবেদন ও নিশ্চায়ন বন্ধে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ফলে বুঝেশুনে কলেজ পছন্দ করা ও পছন্দক্রমে রাখার পরামর্শ দিয়েছেন শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তারা। তারা বলেছেন, ভর্তিতে শিক্ষার্থীর চতুর্থ বিষয়ের নম্বর বাদ দিয়ে মেধাক্রম তৈরি হয়। সফটওয়্যারও সেভাবে তৈরি। শিক্ষার্থী যখন অনলাইনে একটি কলেজ পছন্দ করবে, সঙ্গে সঙ্গে সফটওয়্যার তার মেধাক্রম জানিয়ে দেবে। পাশাপাশি কলেজে বা পছন্দের বিভাগে আসন সংখ্যাও ওয়েবসাইটে থাকবে। আবেদনের সময়ে দুই দিকে নজর দিলে ভালো ফল করা শিক্ষার্থীদের বাদ পড়ার কথা নয়।
আবেদনকারী বাছাইয়ে আরও কয়েকটি দিকে নজর দিয়ে থাকে বোর্ডগুলো। তা হচ্ছে- যদি একই সিরিয়ালের আসনের বিপরীতে সমান নম্বরপ্রাপ্ত একাধিক শিক্ষার্থী পাওয়া যায়, তাহলে গণিত, ইংরেজি, বাংলায়- কে বেশি পেয়েছে তা দেখা হবে। এতেও সুরাহা না হলে বিভাগভিত্তিক বিষয়ে প্রাপ্ত নম্বর দেখা হবে। বিষয়টি ভর্তি নীতিমালার ৩ নম্বর ধারায় রয়েছে। জানা গেছে, এ বছর কলেজ পছন্দ করলেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে শিক্ষার্থীর মেধাক্রম দেখানো হবে। এতে করে কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়ার সম্ভাব্যতা সহজেই নিরূপণ করা যাবে।
ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ভর্তিতে সংকট সাধারণ চিত্র নয়। গ্রাম-গঞ্জের কলেজে আবেদনকারীর তুলনায় আসন সংখ্যা বেশিই থাকে। এ সমস্যা কেবল বড় কলেজগুলোর ক্ষেত্রে। তিনি বলেন, সমস্যা এড়াতে শিক্ষার্থীদের কয়েকটি কাজ করতে হবে। এগুলো হচ্ছে অবশ্যই ১০টি কলেজ পছন্দ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর মেধাক্রম আর ১০টি কলেজের আসন সংখ্যা হিসাবে নিতে হবে। নইলে আবেদনের প্রথম ধাপে সুযোগ মিলবে না।
ভর্তি নীতিমালা: ৩০ জুনের মধ্যে ভর্তি শেষ করে ১ জুলাই শিক্ষার্থীদের ক্লাস শুরু করা হবে। এবারও কলেজের সব আসনে মেধার ভিত্তিতে ভর্তি করা হবে। কোটার শিক্ষার্থী ভর্তি করা হবে বাড়তি আসনে। এবারও তিনটি ধাপে নেয়া হবে আবেদন। প্রথম ধাপে আবেদন করা যাবে ২৩ মে পর্যন্ত। ফল প্রকাশ ১০ জুন। দ্বিতীয় পর্যায়ে আবেদন করা যাবে ১৯ ও ২০ জুন। ২১ জুনই ফল প্রকাশ। তৃতীয় ধাপে ২৪ জুন। ফল প্রকাশ ২৫ জুন। ২৭-৩০ জুন ভর্তি হতে হবে। অনলাইনে সর্বনিম্ন ৫টি এবং সর্বোচ্চ ১০টি কলেজ বা মাদরাসায় আবেদন করা যাবে। এর জন্য নেয়া হবে ১৫০ টাকা। মোবাইল ফোনে প্রতি এসএমএসে একটি করে কলেজে আবেদন করা যাবে। এর জন্য ১২০ টাকা দিতে হবে। তবে এসএমএস এবং অনলাইন মিলিয়ে কোনো শিক্ষার্থী ১০টির বেশি প্রতিষ্ঠানে আবেদন করতে পারবে না। কলেজ পছন্দের ঝক্কি দূর করতে এবার প্রথম ধাপের আবেদনের ফল প্রকাশ না করা পর্যন্ত আবেদন তালিকায় কলেজের পছন্দক্রম রদবদল করতে পারবে।
কলেজ পাওয়ার পর শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিশ্চায়ন (রেজিস্ট্রেশন) করতে হবে। এর জন্য গত বছর ১৮৫ টাকা নেয়া হতো। এবার ১৯৫ টাকা নেয়া হবে। ভর্তি বিলম্ব ফি ৫০ টাকার বদলে ১০০ টাকা দিতে হবে। পাঠ বিরতি বা ইয়ার লস শিক্ষার্থীদের ১০০ টাকার বদলে ১৫০ টাকা ফি নির্ধারণের প্রস্তাব করা হয়েছে।
ভর্তিসহ অন্যান্য ফি গত বছরের মতোই। কলেজ-মাদরাসায় ভর্তিতে কত টাকা নেয়া হবে তা আগেই নোটিশ দিয়ে জানাতে হবে। নীতিমালায় একাদশ শ্রেণিতে সেশন চার্জসহ ভর্তি ফি মফস্বল/পৌর (উপজেলা) এলাকায় এক হাজার টাকা, পৌর (জেলা সদর) এলাকায় দুই হাজার টাকা, ঢাকা ছাড়া অন্য সব মেট্রোপলিটন এলাকায় তিন হাজার টাকা ধার্য করা হয়েছে। তবে মেট্রোপলিটন এলাকায় এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে ভর্তিতে ৫ হাজার টাকার নেয়া যাবে না। মেট্রোপলিটন এলাকায় অবস্থিত আংশিক এমপিওভুক্ত বা এমপিওবহির্ভূত শিক্ষকদের বেতন-ভাতা হিসেবে শিক্ষার্থীদের ভর্তির সময় ভর্তি ফি, সেশন চার্জ ও উন্নয়ন ফিসহ বাংলা মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৯ হাজার টাকা এবং ইংরেজি ভার্সনে সর্বোচ্চ ১০ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।
 Next Update পেতে Post টি Share করে TechRumel.Com এর সাথে থাকুন। এবং এই Post টি আপনার কেমন লাগছে? নিচে Comment Box এ আপনার মতামত ব্যক্ত করুন।

Want a beach free of tourists? Try Bangladesh. Pictured: The fishing port and sea resort of Cox's Bazar. Photo: Alamy
If you'd prefer not to be rubbing shoulders with other tourists on holiday, head to Bangladesh.

The South Asian nation is the world's least 'touristy' destination, according to data obtained by the World Bank.

That data was analysed by Priceonomics, which compared the number of tourists arriving in each country with the size of its population.

Based on that model, Guinea, Moldova, India and Sierra Leone completed its top five least touristy nations.

So where are you most likely to bump into other tourists? Perhaps Great Britain, France or Thailand? Errr, no. It's Andorra. This diminutive destination may not be on everyone's bucket list, but Priceonomics reckons it has the highest number of tourists per locals (32.4), making it the world's most touristy country.

The rest of the top five was just as surprising, comprising Aruba, Monaco, Bahrain and Palau.

Priceonomics also looked at the countries experiencing the biggest uplift in tourism and found that Georgia (+17.1 per cent), Bhutan (+12.3 per cent) and Congo (+9.1 per cent) had the largest increases in tourists between 2004 and 2014.


However, the data does have its shortcomings: not only does the World Bank not have records for all countries (38 nations, largely in conflict zones, are not represented), but its research is based on the number of arrivals to a country, meaning repeat visitors may have been counted multiple times.

With its excellent trekking, fine beaches and tiger safaris, Bangladesh has been previously touted as the next big thing. However, ongoing security fears, flooding and extreme poverty have kept all but the most intrepid travellers away.


The least touristy countries
(Locals per tourists)

  1. Bangladesh - 1273
  2. Guinea - 372
  3. Moldova - 323
  4. India - 169
  5. Sierra Leone - 144
  6. Niger - 142
  7. Ethiopia - 126
  8. Chad - 111
  9. Madagascar - 106
  10. Mali - 102
  11. Burkina Faso - 92
  12. Belarus - 69
  13. Sudan - 58
  14. Cote d'Ivoire - 47
  15. Tanzania - 47
  16. Benin - 44
  17. Papua New Guinea - 41


The most touristy countries
(Number of tourists per local)

  1. Andorra - 32.4
  2. Aruba - 10.4
  3. Monaco - 8.7
  4. Bahrain - 7.7
  5. Palau - 6.7
  6. Malta - 4.0
  7. Hong Kong - 3.8
  8. The Bahamas - 3.7
  9. Bermuda - 3.4
  10. Iceland - 3.1
  11. Maldives - 3.0
  12. Austria - 3.0
  13. Curacao - 2.9
  14. Croatia - 2.7
  15. Antigua & Barbuda - 2.7
  16. Seychelles - 2.6
  17. San Marino - 2.3



TechRumel

List Of Best Software Download Sites

Update: When we first published this article, we had listed a few websites which have now been removed due to lack of updates. We have added a few more new options to make sure all sites are working properly in 2019.
Related Articles: 12 Sites That Will Teach You Coding for Free

1) Download.Com
Download.com is the mother of all software download websites. It’s the oldest of its type and was established about 14 years ago. This site is owned by CNet, one of the biggest names in Technology News and Products reviews on the Internet.
It has a huge repository of computer software for all platforms like Windows, Mac, and Linux as well as Mobile applications. They also cover web-based applications and services.  The Software section includes over 100,000 freeware, shareware, and try-first downloads.
Downloads are often rated and reviewed by editors and contain a summary of the file from the software publisher. Registered users may also write reviews and rate the product.
2) FileHippo.Com
FileHippo is one of my favorite freeware download website. It offers freeware as well as shareware.
It also offers the FileHippo Update Checker, a small program that scans your computer for installed software from the FileHippo site and suggests available updates for it. Keeping computer software updated is an important step in keeping your computer secure. The FileHippo update checker helps you do that with ease.
3) ZDNet Download
ZDNet’s Software Directory is the Web’s largest library of software downloads. Covering software for Windows, Mac, and Mobile systems, ZDNet’s Software Directory is the best source for technical software.
Over the last few years, they have gone through a number of upgrades and the sites is much better looking and has a better collection of software as compared to when we first listed it here. They list both Freeware and Shareware downloads.
4) Softpedia.Com
Softpedia is a Romanian website that indexes information and provides downloads for software. The site also indexes major technology, science, health, and entertainment news.
Software categories are arranged hierarchically and are modeled after Windows filesystem paths, such as “C: > Mobile Phone > Tools > Nokia.”
Users can sort by criteria such as the date of the last update, the number of downloads, or the rating. There are three viewing modes, normal, freeware, or shareware, which allows users to screen out certain types of software.
5) Tucows.Com
tucows-free-software-download-sites
Tucows (originally an acronym for The Ultimate Collection Of Winsock Software, a name which has long since been dropped). It has a popular website directory of shareware, freeware, and demo software packages available to download.
A system of mirror sites is maintained to allow the traffic to the site to be distributed among several worldwide server locations. Tucows has software for many major computer platforms including Windows, Linux and Macintosh, and also older versions of Windows (most notably the Windows 3.x series). They also cover web-based Apps and Services.
6) FreewareFiles.Com
freewarefiles-free-software-download
FreewareFiles, as the name indicates a website dedicated to Freeware software and have a number of Open Sources programs listed. They have over 15800 freeware programs available for download on their website. The programs are arranged in categories and it’s quite easy to navigate and find the ones you are looking for.
7) MajorGeeks
majorgeeks-best-freeware
MajorGeeks is here to help you get the most out of your computer mainly by offering tools to the beginner or advanced user. It was previously known as TweakFiles in 1997, but since have been renamed. This site is run and maintained by 2 friends Jim and Tim, and their excellent sense of humor gives this site a more personal touch.
Many of the files found here give you a nice interface and even explain things for you in simple terms. Many do not even make modifications until you apply them.
The files provided for download are checked for quality before they are posted. This simply means every program is checked to be sure it basically does what it promises and is spyware and virus free. MajorGeeks has an excellent user community who help new users with computer issues as well as keep a tab on irregularities in software.
8) FileCluster
filecluster-software-download-sites
FileCluster is one of the newer download websites. It’s established in 2006 and has since provided visitors with the latest and updated software. The site provides both Freeware and Shareware programs. They also list WordPress Themes and Latest News about Software Companies.
9) Soft32
soft32-best-download-sites
Soft32 was established in 2003 and since has updated its software directory regularly. It covers freeware and shareware software for Windows, Mac, and Linux along with Mobile/PDA and has a special iPhone apps section.
It has a repository of 87587 programs and features a Windows forum for getting help with Windows OS issues.
10) Softonic
softonic-best-freeware
Softonic was established in 1997 and is Europe’s leading software download site with more than 105,000 freeware, shareware and trial version software titles available with reviews written in Spanish, German, English, French, Italian, Portuguese, Chinese and Polish. The English language portal was launched in November 2005.
Softonic International is committed to offering the latest software for all users, on all platforms, with reviews in the world’s most popular languages. One of the cool features of Softonic is a unique software comparison tool that allows you to evaluate multiple programs side-by-side.
If you like to discover new software, check out our Software category for new and useful software and Security category for the best Security software information.



Thank's for Watching....

Please Like | Comment | Share and Don't forget to SUBSCRIBE Me!

How to post a blocked URL on Facebook (100% Working)

Is your URL blocked on Facebook? So, you are not able to share your website stuff anywhere. Don’t worry if Facebook is saying –
  • Sorry, this post contains a blocked link.
  • We believe the link you are trying to visit is malicious. For your safety, we have blocked it.
  • We can’t review this website because the content doesn’t meet our Community Standards. If you think this is a mistake, please let us know.
Here’s a proven solution to get rid of this problem permanently.

**** Support Link: Click Here To Submit.
**** Copy This Text: Change Your Web Site Url
This Is My Own Website, This Is Not Spam Please Activate My Website, Many Times We Review But Not Active My Website Many Many Problems On Sharing Link Please Active Immediately Thank U Sir - WebSite Link - (http://TechRumel.Com)
You will learn here a unique technique to post any type of blocked link on Facebook. Also, you will be able to prevent your original URL from getting blocked on Facebook. As per as I am guessing if I’m not wrong. I think URL is being blocked by reporting by other users as spam.
Disclaimer: This tutorial is strictly for the educational and informational purpose, sharing in good faith. I don’t encourage to misuse in any way, for any loss or damage the author shall not be held as responsible.

If you find this trick useful for yourself, please don’t forget to share with your friends.  If still have you any problem in understanding any step, please feel free to ask me in the comment section. It would my pleasure to answer your query.
Keywords:
  1. How to post a blocked URL on Facebook (100% Working)
  2. How to Post or Send Blocked URL on Facebook Easily
  3. My Website URL blocked By Facebook | How To Unblock?
  4. My website url is blocked when posting link on Facebook. How to unlock it?
  5. Website URL Blocked by Facebook



কিছু মজার রসিকতা

১.কম্পিউটার অনেকটা মানুষের মতোই। মাত্র একটিই পার্থক্য—এটি নিজের দোষ অন্য কম্পিউটারের ঘাড়ে চাপাতে পারে না।
২. একটি বই থেকে নিয়ে লিখলে সেটা হয় চুরি। আর কয়েকটা বই থেকে নিয়ে লিখলে সেটা হয় গবেষণা।
৩. প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি হলেন তিনি, যাঁর বৃদ্ধি ওপর ও নিচ এ দুই প্রান্ত থেকে থেমে গেছে, কিন্তু পাশে বাড়ছে।
৪. হে প্রভু, আমাকে ধৈর্য দাও। এখনই দাও। এক্ষুনি।
৫. নির্বোধের সঙ্গে তর্কে যেয়ো না। সে তোমাকে নিজের পর্যায়ে নামিয়ে আনবে এবং নিজের অভিজ্ঞতা দিয়ে তোমাকে হারিয়ে দেবে।
৬. মানুষ মাত্রেরই ভুল হয় কিন্তু অফিস মাত্রই তা ক্ষমা করে না।
৭. আমি আমার দাদার মতো ঘুমের মধ্যে শান্তিতে মরতে চাই, তাঁর বাসের যাত্রীদের মতো চিত্কার করতে করতে নয়।
৮. শিশুর সংজ্ঞা হলো—যাদের জন্মের পর প্রথম দুই বছর চলে যায় হাঁটা আর কথা শেখায় এবং তার পরের ১৬ বছরই কেটে যায় তাদের মুখ বন্ধ রাখা আর স্থির হয়ে বসা শেখায়।
৯. আপনার যথেষ্ট পরিমাণ টাকা আছে, শুধু এটা বোঝাতে পারলেই আপনি কোনো ব্যাংক থেকে টাকা ধার পেতে পারেন।
১০. যদি তোমার মনে হয় যে তুমি বেঁচে আছ নাকি মরে গেছ, তা নিয়ে কারও কোনো মাথাব্যথা নেই, তাহলে এক-দুই মাস বাড়ি ভাড়া দেওয়ার কথা ভুলে গিয়ে দেখ।
১১. ভাবতে ভাবতে ক্লান্ত হয়ে পড়লেই কেবল আমরা উপসংহারে পৌঁছাই।
১২. কখনো কোনো পরিস্থিতিতেই ঘুমের ওষুধ আর জোলাপ একসঙ্গে খাবেন না।
১৩. সন্ধ্যার খবর শুরু করা হয় ‘শুভ সন্ধ্যা’ বলে। এরপর একে একে বলা হয় সন্ধ্যাটি কেন শুভ নয়।
১৪. যদি বলো আকাশে চার বিলিয়ন তারা আছে, তাহলে না গুনেই সবাই সেটা বিশ্বাস করবে। কিন্তু যদি বলা হয়, মাত্র রং করেছি, চেয়ারের রংটা এখনো শুকায়নি, তাহলে সবাই হাত দিয়ে দেখবে।
১৫. লক্ষ্যভেদ করতে চাইলে প্রথমে তীর ছোড়ো, তারপর যেটায় লাগে সেটাকেই লক্ষ্যবস্তু হিসেবে প্রচার করো।
১৬. সময় খুবই ভালো উপশমক, কিন্ত রূপসজ্জাকর হিসেবে খুবই খারাপ।
১৭. আতিথেয়তা এমন একটি গুণ, যার কারণে অতিথিরা ভাবে, যেন তারা নিজের বাড়িতেই আছে।




How To Connect Hosted Wordpress in Android Apps | Get WordPress Post in Android App |
In this video lesson, You will learn how to get WordPress post in android app. & connecte Your Hosted Wordpress in Android Apps
#WordPress for #Android: How to Create a Post on WordPress for Android. Discover how to start publishing on the WordPress for Android app.

Our video tutorial will show you how to create posts.

Download the app for iOS, Android, and desktop at Wordpress Apps For more information about customizing your WordPress.com site, or other support questions, visit WordPress.com Support: Support For more information about creating a website or blog with WordPress.com, visit: create To enable the Jetpack plugin for your WordPress site: Jetpack

Contact

Facebook: Rumel Ahmed Instagram: @TechRume Twitter: @TechRumel Call: +8801868083702 Email: Contact@techrumel.com Web: https://TechRumel.Com

অনেকেই অনেকের কাছে প্রশ্ন করেন কিভাবে কোডিং শিখবো? কিন্তু সবাই পেইড কোর্সের আইডিয়া দেয়। আজ আমি আপনাদের মধ্য এমন কয়েকটি ওয়েব সাইটের সাথে পরিচয় করিয়ে দিবো যা বিনামূল্যে কোডিং শিখতে সহায়তা করবে।
যারা কোডিং কি জানেন না তাদের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে কোডিং শিখে কি করবো?
আপনাদের এই প্রশ্নের জবাব,,,
  • ওয়েবসাইট ডিজাইন করতে পারবেন। (নিজের জন্য, অথবা কোন প্রতিষ্ঠানের জন্য Example: TechRumel.Com)
  • ওয়েবসাইট ডিজাইন করে টাকা আয় করতে পারবেন (ফ্রিল্যান্সিং করতে পারবেন Upwork, Freelancer & Fiverr Etc, বড় বড় প্রতিষ্ঠানে)

There was a time when knowing how to program was for the geekiest of geeks. That’s not exactly the case today. As most entrepreneurs, freelancers and marketers will tell you, learning how to program can help you succeed. Over the past year, I've been learning to code. It's helped me to become a much better entrepreneur -- I can dive in when my team needs to fix a few bugs on the site.

Related Articles: ডাটা এন্ট্রি কাজ পাবেন এমন সেরা ৫টি ওয়েব সাইট
You don’t even need to shell out a ton of money or put yourself in debt to learn how to code, either. These 12 places offer coding courses for free:

1. CodeAcademy

One of the most popular free places to learn coding is CodeAcademy. In fact, more than 24 million people have already learned how to code through this educational company’s engaging experience. At CodeAcademy, you can dive right in and take courses that teach you everything from HTML & CSS, JavaScript, jQuery, PHP, Python and Ruby.

2. Coursera

Founded in 2012, Coursera has grown into a major for-profit educational-technology company that has offered more than 1,000 courses from 119 institutions. While you can pay for certain programs to receive a certificate, there are a number of free introductory programming courses in various specializations from universities such as the University of Washington, Stanford, the University of Toronto and Vanderbilt.

3. edX

EdX is another leading online-learning platform that is open source instead of for-profit. It was founded by Harvard University and MIT in 2012, so you know that you’ll learn about cutting-edge technologies and theories. Today, edX includes 60 schools. You probably can’t go wrong with the free Introduction to Computer Science from Harvard University.

4. Udemy

Founded in 2010, Udemy is an online learning platform that can be used as a way to improve or learn job skills. While there are courses you have to pay for, there are plenty of free programming courses, which are taught via video lessons, such as Programming for Entrepreneurs - HTML & CSS or Introduction to Python Programming.

5. aGupieWare

AGupieWare is an independent app developer that surveyed computer-science programs from some of the leading institutions in the U.S. It then created a similar curriculum based on the free courses offered by Stanford, MIT, Carnegie Mellon, Berkeley and Columbia. The program was then broken into 15 courses: three introductory classes, seven core classes and five electives.
While you won’t actually receive credit, it’s a perfect introductory program for prospective computer programmers.

6. GitHub

Sometimes, you need to recall a reference book when you’re stuck on a problem. That's GitHub. You can find more than 500 free programming books that cover more than 80 different programming languages on the popular web-based Git repository hosting service, which means that it’s frequently updated by collaborators.

7. MIT Open Courseware

If you’ve already learned the basics, and went to get into something a bit heavier -- such as exploring the theory behind coding -- take advantage of MIT’s free courseware site that includes classes such as Introduction to Computer Science and Programming, Introduction to Programming in Java and Practical Programming in C.
Here is a list of resources if you are getting serious about studying computer science.

8. Hack.pledge()

This is a community of developers, which include some high-profile developers such as Bram Cohen, the inventor of BitTorrent. There, you can perfect your programming skills by learning from some of the leading developers in the world.

ফ্রিল্যান্সিংয়ের মাধ্যমে আয় করা এখন যে আর কাল্পনিক কিছু নয় সেটি ইতিমধ্যেই প্রমাণিত হয়েছে। হাজার হাজার ছেলে মেয়ে এখন ফ্রিল্যান্সিংয়ের সঙ্গে যুক্ত। এ কাজটি করার মাধ্যমে তারা নিজেকে স্বাবলম্বী করে তুলেছে সেই সঙ্গে দেশকেও এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথে। অনলাইনে বেশ কয়েকটি ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্ম রয়েছে তন্মধ্যে ওডেস্ক রয়েছে সবার উপরে। ওডেস্কে প্রতিদিন বিভিন্ন বিষয়ের উপর হাজার হাজার কাজ জমা পড়ছে। আর সে কাজগুলি করেই বিভিন্ন বিষয়ের দক্ষ ফ্রিল্যান্সারগণ নিজেদেরকে করে তুলেছে অর্থনৈতিকভাবে স্বাধীন। এ কথা থেকে সহজেই অনুমেয় যে ওডেস্কে কাজ পেতে হলে দক্ষতার কোন বিকল্প নেই। কিন্তু এখন প্রশ্ন হচ্ছে আপনি কি কাজ করবেন বা কোন বিষয়ে দক্ষ হবেন? এটি আসলে নির্ভর করে কোন ব্যক্তির কোন বিষয়ের কাজ ‍করার যোগ্যতা রয়েছে। যেমন কোন ব্যক্তি যদি শুধু টাইপিংয়ের কাজ জানে তাহলে তার উচিত হবে ডাটা এন্ট্রির কাজের মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করা।
তো বন্ধুগণ এমনিভাবে আজ আমি আলোচনা করব ফ্রিল্যান্সিংয়ের সফল হওয়ার জন্য কী কাজ শিখবেন এবং সেটি কীভাবেই বা শিখবেন? সাথে আছি আমি রুমেল। আমার এই টপিক সম্পুর্ণ পড়বেন এবং অন্যদের মধ্যে শেয়ার করবেন এই আসা করে কাজের কথায় আসি

কাজ পাওয়ার জন্য কী শিখবেন:

কাজ পেতে হলে কিছু বিষয় অবশ্যই আপনার আয়ত্তে আনতে হবে। তো চলুন দেখে নেওয়া যাক কী শিখবেন? ● ইংরেজীর গুরুত্ব নিশ্চয় আপনাকে বোঝানো লাগবে না। সুতরাং ফ্রিল্যান্সিংয়ে সফলতার জন্য ইংরেজী শিখুন। ● ৩) এরপর নিচের যেকোনটা বেছে নিন , তবে যত বেশি জানবেন ততই লাভ, ডাটা এন্ট্রির জন্য-অফিস প্যাকেজ, ওয়েব রিসার্চ, আর্টিক্যাল রাইটিং, ইউটিউব ডিটেইলস ইত্যাদি। গ্রাফিক্স ডিজাইনিং এর জন্য- ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর,কোরেল ড্র, ইনডিজাইন শিখুন। ওয়েব ডিজাইনিং এর জন্য-ফটোশপ, HTML, CSS, Javascript, JQuery, ওয়েব ডেভেলপিং এর জন্য-HTML, CSS,পিএইচপি কনটেন্ট ম্যানেজমেন্টের জন্য – ওয়ার্ডপ্রেস, জুমলা (ব্যাসিক ও আ্যডভান্স)

কাজ কীভাবে শিখবেন, কোথা থেকে শিখবেন?

● অনলাইনে যেকোন কাজ আপনি খুব সহজেই শিখতে পারেন বিভিন্ন টিউটোরিয়ালের মাধ্যমে। টিউটোরিয়াল খুজে পেতে গুগলের সহায়তা নিন। ● ভিডিও দেখে শিখবেন। ইউটিউব ছাড়াও লিন্ডা ইত্যাদির ভিডিও টিউটোরিয়াল রয়েছে। বাংলায় আল-হেরা মাল্টিমিডিয়ার ভিডিও টিউটোরিয়াল দেখেও শিখতে পারেন।

কিছু স্যাম্পল কাজ আগেই করে রাখুন:

আপনি কোন কাজ করতে পারেন সেটি বায়ারকে শুধু মুখে বললেই তো আর কাজ পাওয়া যাবে না। বরং ঐ ধরনের কিছু কাজ আগে থেকে করে রেডি রাখুন এবং বায়ারকে দেখান। তবে আপনার কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যাবে। তাছাড়া বাংলা প্রবাদটি তো আপনারও জানা যে “শুকনো কথায় চিড়া ভিজে না”।

কাজ পাওয়ার পূর্বশর্ত:

ফ্রিল্যান্সিং ই এখন অনেকের মূল পেশা। আবার অনেকেই রয়েছেন অল্প কিছুদিন কাজ পাওয়ার চেষ্টা করে কাজ না পেয়ে হতাশাগ্রস্থ হয়ে ফ্রিল্যান্সিং-ই ছেড়ে দিয়েছেন।বিপরীতভাবে অনেকেই রয়েছেন যারা ধৈর্যের সাথে নিয়মিত চেষ্টা করে গেছেন এবং পরবর্তীতে কাজও পেয়ে গেছেন। এখন তারাই সফল ফ্রিল্যান্সার। সুতরাং একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে হলে আপনাকে অবশ্যই নিম্নোক্ত কিছু বিষয় মেনে চলতে হবে। ● আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। খুব সহজেই হতাশাগ্রস্থ হয়ে পড়া চলবে না। ● আপনি যে ধরনের কাজ করতে চান সেসব কাজের কিছু স্যাম্পল আগেই তৈরী করে পোর্টফোলিওতে রাখতে হবে। ● আপনার দক্ষতাগুলি প্রকাশ পায় এমনভাবে সুন্দর একটি কাভার লেটার তৈরী করতে হবে। ● আপনি যে ধরনের কাজ করেন সে কাজের নিত্য নতুন ট্রেন্ডের সঙ্গে পরিচিত হতে হবে এবং সেগুলি শিখে আপনার আয়ত্তে রাখতে হবে।

আসুন জেনে নেই ওডেস্ক থেকে কাজ না পাওয়ার কিকি কারন

১। প্রোফাইল কমপ্লিটনেস ১০০% না করা

ওডেস্ক থেকে কাজ পাওয়ার পূর্ব শর্ত হোল প্রোফাইল কমপ্লিটনেস ১০০% করা। আমরা অনেকেই আমাদের প্রোফাইল ১০০% পূর্ণ না করেই জবে বিড করতে শুরু করি ফলে বায়াররা আমাদের শুরুতেই আমাদের অ্যাপ্লিকেশন বাতিল করে দেয়। সে জন্য আপনার প্রোফাইল ১০০% পূর্ণ করুন তারপর জবে বিড করুন।

২। পোর্টফলিও যুক্ত না করা।

আপনি যে বিষয়ে কাজের জন্য বিড করবেন সেই ধরনের একটি কাজ আগে করে আপনার পোর্টফলিওটে যুক্ত করে রাখুন। কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে পোর্টফলিও ভালো ভুমিকা রাখে। এটি ছাড়া অনেক সময় কাজ পেতে দেরি হয়।

৩।স্কিল টেস্ট না দেওয়া।

স্কিল টেস্ট না দিয়ে ওডেস্ক থেকে কাজ পাওয়া একেবারেই অসম্ভব।আমরা ওডেস্ক স্কিল টেস্ট না দিয়েই কাজে বিড করার জন্য ঝাঁপিয়ে পড়ি ফলে আমরা কাজ পাই না। ধরুন আপনি এক্সেলের একটি কাজের জন্য বিড করতে যাচ্ছেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই এক্সেলের উপর স্কিল টেস্ট দিতে হবে ও এভারেজ মার্কস পেয়ে পাস করতে হবে।

৪।কভার লেটার প্রাসাঙ্গিক না হয়া।

কভার লেটার দ্বারাই একজন বায়ার প্রথমেই আকৃষ্ট হয়, তারপর প্রোফাইল চেক করে। আমরা অনেকেই জানি না কিভাবে কভার লেটার লিখতে হয়, ফলে আমরা কাজ উল্টো-পাল্টা কভার লেটার লিখে কাজ পাওয়ার বৃথা চেস্টা করি। কভার লেটার হবে পরিমিত, মার্জিত ও সংক্ষেপ।

আপনি উপরের সমস্যা গুলো সমাধান করতে পারেন তাহলে তাহলে আপনি কাজ পাবেনই।

অনেকে ওডেস্কে কাজ করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন কিন্তু উপরের সমস্যা গুলো কোন ভাবে সমাধান করতে পারছেন না।কিভাবে প্রফাইল ১০০% করতে হবে, কিভাবে স্কিল টেস্টে পাস করতে হবে, কি ভাবে সুন্দর করে কভার লেটার লিখতে হবে,কি ভাবে ওডেস্কে বিড করতে হবে কোন গাইড লাইন পাচ্ছেননা তাদের জন্য নিচের পোস্ট টি পড়ার জন্য অনুরধ করা হোল।

আগে কাজ করুন, টাকা এমনিতেই পাবেন:

আমাদের দেশ থেকে এখন লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার ওডেস্কে কাজ করছে এবং কোন ঝামেলা ছাড়াই তাদের টাকা হাতে পেয়ে যাচ্ছে। সুতরাং টাকা পাওয়ার ব্যাপারে দুঃচিন্তা না করলেও চলবে। তবে আপনাকে যেটি নিয়ে চিন্তা করতে হবে সেটি হচ্ছে বায়ারের রেটিং এবং কাজটি কিভাবে পাওয়া যায়। কারণ বায়ারের রেটিং ভালো হলে টাকা পাওয়ার ব্যাপারটি নিয়ে বিন্দুমাত্র ঝামেলার আশঙ্কাও নেই। আর কাজটি পেয়ে আপনি সঠিকভাবে করে দিতে পারলে পেওনার, মানিবুকার, চেক, ওয়ার ইত্যাদি অনেক উপায়েই আপনি টাকা তুলতে পারবেন। সুতরাং টাকা কিভাবে পাবেন সে চিন্তা না করে বরং কোন কাজ কীভাবে পাবেন এবং সেটি কীভাবে করবেন সেটি চিন্তা করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ।
তো বন্ধুরা আমার আজকের এই টপিক আপনাদের কেমন লাগছে কমেন্ট করে জানাবেন। এবং এই টপিক টি শেয়ার করে অন্যদের পড়ার সুযোগ করে দিবেন। পরবর্তী টপিক আইডিয়াও কমেন্টে দিতে পারেন। সব সময়ের ভালো ভালো টপিক নিয়ে আলোচনা করবো তার জন্য সবার সহযোগিতা অনেক প্রয়োজন। সবাই ভালো থাকবেন টেকরুমেল এর সাথে থাকবেন এই আসা করি।


সবাই কেমন আছেন? আসা করি অনেক অনেক ভালো আছেন। সব সময়ের মত আজকেও নতুন একটি টপিক নিয়ে আলোচনা করবো। তো কাজের কথায় আসি! আজ আলোচনা করবো ফ্রীতে ভালো ভালো ওয়ার্ডপ্রেস থীম ডাউনলোড করতে পারবেন এমন কিছু সাইট নিয়ে যেখানে ভালো ভালো থীম ফ্রীতে পাওয়া যায়। তো চলুন দেখে নেয়া যাক এমন কয়েকটি ওয়েব সাইট।

ওয়ার্ডপ্রেস থীম ডাওনলোডের সেরা কিছু সাইটঃ

  1. fresheezy
  2. Free Wordpress Themes
  3. Template Browser
  4. Wordpress
  5. Free Wp Theme
  6. Woo Themes
  7. Blog oh Blog
  8. Top Wo Themes
  9. Wp Skins
  10. Wordpress Themes Base
আজকের এই টপিক আপনাদের কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন। পরবর্তী টপিক পেতে টেকরুমেল এর সাথে থাকুন


আত্মতৃপ্তি ও সুখ পাওয়ার জন্য প্রচুর সম্পদ বা ক্ষমতার প্রয়োজন হয়না, অসহায়কে সহায়তা প্রদানেই প্রকৃত সুখ। রিয়া আমার জীবনে না আসলে, সেই সুখের অনুভূতিটা পেতাম না। রিয়া আমাকে রুমেল দা বলে ডাকত। এতে আমার খুব রাগ হতো কিন্তু রাগ করতাম না। কারণ আমি রাগ করলে রিয়া উলটা রাগ করতো, আর সেই রাগ আমাকেই ভাঙতে হতো। রিয়া খুব অভিমানী এবং ভাবনা ময়ী মেয়ে ভাবনাতেই ডুবে থাকে সর্বক্ষণ। তার ভাবনা কিন্তু সবার থেকেই ভিন্ন। নিজের স্বার্থচিন্তা না করে, অন্যের দুঃখ-বেদনাকে উপলব্ধি করাই তার ভাবনা। অন্যের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা ভাগ করে নেওয়া যায় কিভাবে সেইসব নিয়ে চিন্তাজগতে ডুবে থাকে সে। কিন্তু আমার সাথে তার ব্যবহার এই সব কিছুর ব্যতিক্রম, যখনি আলাপ হয় কোন না কোন কাজ দিতেই থাকে। আমিও করে দেই, তার কাজ করে দিতে আমার খুব ভালো লাগে। রিয়াকে আমি খুব বেশি ভালোবাসি, আর রিয়াও আমাকে। আমাদের ভালোবাসা টাও ভিন্ন, সব সময় ভালো কাজের উপদেশ একজন আরেকজন কে দিতাম।

একদিন রিয়া আমাকে একটি বার্তা তে বলে।

রুমেলঃ রমজান মোবারক।

রিয়াঃ আপনাকেও, কেমন আছেন।

রুমেলঃ হুম! আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি। আপনি?

রিয়াঃ আলহামদুলিল্লাহ আমিও ভালো আছি।

রুমেলঃ আজ কোন কাজের কথা বলবেন না? আপনি তো আমার জন্য কাজেরকাজি।

রিয়াঃ হুম! কাজ তো আছেই, করতে পারবেন? অসহায় পরিবারে ইফতার সামগ্রী এবং মাদ্রাসায় ইফতার বিতরনে আপনি চাইলে আমাদের সাথে সহযোগীতা করতে পারেন। আপনি কি আমাদের সাথে সহযোগীতা করবেন?

রুমেলঃ হুম, আমি করতে চাই, এই রকম মহৎ কাজ করে অনেক তৃপ্তি পাবো।

রিয়ার কথামতো আমি তাদের সাথে সংযুক্ত হই, এবং আমি আমার সাধ্যমতো আর্থিক ভাবে সহযোগীতা করি, শুধু আমি নই আরো যারা আছে সবাই সবার সাধ্যমতো সহযোগীতা করে রিয়ার পাশে থাকে। রিয়া আমাদের কয়েক জনকে কয়েক জেলা থেকে নিযুক্ত করেছিলো আমিও তাদের সাথে যুক্ত হয়ে সিলেট জেলার হাল টা ধরলাম। রিয়া আমাকে বলে আপনি সিলেট থেকে কয়েকটি অসহায় পরিবার খুঁজেন। তাদের মধ্যে আমরা ইফতার বিতরণ করবো। আমি আমার বন্ধু এবাদকে সাথে নিয়ে রিয়ার কথা মতো পরিবার খুজলাম, আমি আর এবাদ তিনটি পরিবার নিযুক্ত করলাম যাদের প্রত্যেকেরই আলাদা আলাদা দুঃখ-কষ্ট, অভাববোধ রয়েছে। একটি পরিবারে এক মহিলার স্বামী নেই ঠিক একবছর আগে রমজান মাসে তার স্বামী মারা গেছেন। আরেকটি পরিবার স্বামী কোন কাজ কর্ম করতে পারেনা, আধমরা স্বামী কে নিয়ে অনেক কষ্টে জীবনযাপন করতেছেন। আরো একটি পরিবার সেই পরিবারেও একি অবস্থা স্বামী আধমরা। তাদের দুঃখ-কষ্ট, অভাববোধ দেখে নিজের খুব খারাপ লাগলো।

কিছুদিন পর,,,,,,

রিয়াঃ সিলেট থেকে কয়টি পরিবার নিযুক্ত করলেন?

রুমেলঃ আমি তিনটি পরিবার নিযুক্ত করেছি।

রিয়াঃ তিন পরিবারের ইফতার সামগ্রী (ছোলা, মুড়ি, চিনি, ট্যাং, খেজুর, মালটা) এর দাম দোকানে গিয়ে জেনে আমাকে আজ রাত্রের মধ্যেই জানাবেন।

রুমেলঃ আচ্ছা।

এইসকল সামগ্রী এর মূল্য জানার জন্য আমি আমার বন্ধু এবাদ এর সহযোগীতা নেই। এবং রিয়াকে বলি তিন পরিবারের মোট হিসাব, তারপর রিয়া আমাকে তিন পরিবারের হিসাব অনুযায়ী অর্থ দিলো।

রিয়াঃ পরেরদিন সব কিনে প্রত্যেক পরিবারে বিতরন করবেন।

রুমেলঃ আচ্ছা।

পরেরদিন আমি এবাদুরকে সাথে নিয়ে সকল সামগ্রী কিনে, প্রত্যেক অসহায় পরিবারের মধ্য তা বিতরণ করি। অসহায় পরিবার গুলো এই সকল সামগ্রী গুলো পেয়েই সন্তুষ্ট। তাদের সন্তুষ্টি তাদের আনন্দ দেখে নিজের অনেক ভালো লেগেছে। আমি প্রত্যেকেরই দুঃখ-কষ্ট, অভাববোধ তখন উপলব্ধি করছিলাম। মনে হচ্ছিলো তাদের মুখের হাসিতেই প্রকৃত সুখ।

বিতরণ শেষে রিয়াকে বার্তাতে বলি,

রুমেলঃ ধন্যবাদ! আজ যা উপলব্ধি করেছি তা কখনো ভুলবো না।

রিয়াঃ কষ্ট করলেন খুব। কেমন লাগল কষ্ট গুলো?

রুমেলঃ কষ্ট নয়। আজ অন্যের মধ্যে বিলীন করার সন্তুষ্টি আমি উপলব্ধি করলাম, আর সেই উপলব্ধির সুযোগ টা আপনার থেকে পাওয়া, ধন্যবাদ আপনাকে।

রিয়াঃ কাউকে উপকার করতে পারাটা জীবনের সেরা সন্তুষ্টি। মানুষ তো মানুষের জন্য। ধন্যবাদ দিতে নেই।

রুমেলঃ হুম।

রিয়াঃ আপনি পাশে ছিলেন বলেই আজ সিলেটে বিতরণটা সম্ভব হইছে।

রুমেলঃ হুম। তোমাকে ভালোবাসি বলে আজ একটি মহৎ কাজ করার সুযোগ পেয়েছি।

এটি গল্প নয় এটি আমার জীবনের বাস্তব অবিজ্ঞতা। পৃথিবীতে অসংখ্য মানুষ বাস করে আর তাদের প্রত্যেকেরই আলাদা আলাদা দুঃখ-কষ্ট, অভাববোধ আছে। তবে সে দুঃখ-কষ্টগুলো একান্তই ব্যক্তিগত। আর কেবলমাত্র ব্যক্তিগত সুখ-দুঃখের চিন্তা করা কোনো মানুষের জীবনের একমাত্র উদ্দেশ্য হতে পারে না। কেননা শুধুমাত্র নিজের ভোগ-বিলাস আর স্বার্থরক্ষার জন্য মানবজীবন নয়। মানুষ পরস্পরের উপর নির্ভরশীল হয়ে সমাজবদ্ধভাবে বাস করে। এই সমাজবদ্ধ জীবনে স্বার্থপরের মতো শুধুমাত্র নিজেকে নিয়ে ভাবা উচিত নয়। বরং চারপাশের সমস্ত দুঃখী, অভাবী মানুষের দুঃখকে উপলব্ধি করতে হবে। অন্যের সুখ-দুঃখ, আনন্দ-বেদনা ভাগ করে নেওয়ার মধ্যেই প্রকৃত সুখ নিহিত। অন্যের দুঃখ-কষ্টকে নিজের মধ্য দিয়ে উপলব্ধি করতে পারলে নিজের দুঃখগুলো ভুলে থাকা যায়। যে ব্যক্তির পা নেই তার কথা চিন্তা করলে নিজের জুতা না থাকার অভাব বা কষ্ট নিতান্তই নগন্য মনে হয়। মহৎপ্রাণ ব্যক্তিগণ নিজেদের দুঃখ, বেদনা, হতাশা, ব্যর্থতাকে ভুলে অপরের কল্যাণে নিজেদের জীবন উৎসর্গ করে গেছেন। অপরের কল্যাণে নিজেদের স্বার্থ চিন্তা পরিহার করেছেন বলেই তাদের জীবন হয়েছে মহান। ইতিহাসের পাতায় লেখা হয়েছে তাদের মহৎ ত্যাগের কথা। মানুষ কেবল নিজের জন্য জন্মগ্রহণ করেনি। শুধুমাত্র নিজের ভোগবিলাস, পাওয়া না পাওয়ার হিসেবে ব্যস্ত থাকলে সেই মানুষ কোনোদিনও জীবনের প্রকৃত সুখের সন্ধান পায় না। অন্যদিকে, নিজের দুঃখ-কষ্টকে বড় করে না দেখে যে ব্যক্তি অন্যের দুঃখ- বেদনাকে উপলব্ধি করতে পারে এবং সে দুঃখ লাঘবে সহায়তা করে সেই প্রকৃত সুখী। যে সত্যিকারের মানুষ সে অপরের দুঃখে ব্যথিত হয় এবং অন্যের দুঃখ দূর করতে নিজের সুখ বিসর্জন দিতেও দ্বিধা করে না। অপরের দুঃখ-কষ্টকে উপলব্ধি করে সে নিজেদের দুঃখের কথা ভুলে যায়। জীবনের সত্যিকার সুখের দেখা পায় সে, যে অপরের দুঃখ-বেদনার কথা ভেবে ব্যক্তিগত দুঃখকে মনে স্থান দেয় না। শিক্ষা: স্রষ্টার শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি মানুষ। মানুষ হয়ে জন্ম নিয়ে এই মহৎ জীবনকে সার্থক করতে হলে, কেবল নিজের স্বার্থচিন্তা না করে, অন্যের দুঃখ-বেদনাকে উপলব্ধি করতে হবে। প্রকৃতপক্ষে, অপরের দুঃখ-বেদনা ভাগ করে নেওয়ার মধ্যেই মানব জীবনের সত্যিকারের সুখ নিহিত।

Contact Form

Name

Email *

Message *

Powered by Blogger.
Javascript DisablePlease Enable Javascript To See All Widget